বাইরে থেকে দেখেই মুগ্ধ হবেন না : মুফতি মেনক

ধর্ম ও দর্শন সাম্প্রতিক
শেয়ার করুন

অনুবাদ : মাসুম খলিলী

এক. হতাশা খারাপ কিছু নয়। যখন আমাদের অপছন্দের কিছু ঘটে, তখন আমরা মনে করি এটি একটি ভুল। আমরা বিরক্ত হই। আমরা ভুলে যাই যে সর্বশক্তিমান নিয়ন্ত্রণে আছেন। তিনি এমন জিনিস দেখেন যা আমরা দেখি না। বড় ছবিটি শীঘ্রই আবির্ভূত হবে এবং আমরা তাঁর অসীম জ্ঞানের জন্য তাঁকে ধন্যবাদ জানাব।

দুই. বাইরে থেকে দেখেই মুগ্ধ হবেন না, সেটিতে চাকচিক্য রয়েছে। গভীরে যান। সততা, আন্তরিকতা নিয়ে দেখুন। বুঝতে পারবেন যে অনেক কিছু বাইরে থেকে তেমন কিছু মনে না হলেও সেটিই শেষ পর্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

তিন. আপনি যখন পিছলে যান তখন আপনার ভারসাম্য আবার ফিরে পাবেন; কিন্তু যখন আপনার জিহ্বা পিছলে যায়, তখন ক্ষতি যা হবার হয়ে যায়। সুতরাং গসিপ থেকে সাবধান থাকুন। এটি একজন ব্যক্তির মর্যাদাকে চুরির মাধ্যমে হরণ করে।

পূনশ্চ:

এক. অনলাইন দুনিয়া থেকে সাবধান। আপনি যখন নিজেকে সেখানকার গড্ডালিকায় ছেড়ে দেন, তখন আপনি এতে পিছলে যাওয়ার সম্ভাবনার মধ্যে খুব বেশি মাত্রায় থাকেন। আর আপনি বাস্তব জীবন, আসল নিজস্বতা এবং আসল অগ্রাধিকারের অনুভূতি হারানোর বিপদের মধ্যে পড়েন। এটি মানুষকে বাস্তবতা থেকে এতটাই বিভ্রান্ত করতে পারে যে এতে তারা ভুলে যেতে পারে যে আসলে তারা কে। এটা এখন অহর্নিশ ঘটছে।

দুই. লড়াই যত বড়, আশীর্বাদও ততটাই বড়। সবাই এটা উপলব্ধি করে না। কেউ কেউ ভাবেন যে একবার আপনি সর্বশক্তিমানের দিকে ফিরে যাবেন, আর জীবন মসৃণ নৌযাত্রা হয়ে যাবে। না, এটা হবে না। তবে এটি যা করে তা হ’ল পরিস্থিতি যাই হোক না কেন আপনি তাঁর উপর আস্থা রাখতে সক্ষম হবেন। তিনি আপনার প্রতিক্রিয়া দেখছেন!

তিন. অবিলম্বে এটি ঠিক করুন। যখন কোন কিছু ঠিক না থাকে এবং আপনি নিজেকে সর্বশক্তিমানের কাছ থেকে দূরে সরে গেছেন বলে অনুভব করেন, তখন সমস্যার মূলে যান। আপনাকে কী দূরে সরিয়ে নিয়ে গিয়েছিল এবং কী বিচ্ছিন্ন করেছিল? এটি মোকাবেলায় বিলম্ব করবেন না কারণ শয়তান আপনার বিশ্বাসের অবর্ণনীয় ক্ষতি করে যেতে পারে। অবিচল থাকুন!

চার. দীর্ঘ সময়ের জন্য খারাপ আচরণ না করা হলে একটি হৃদয় শীতল হয় না। তাই আপনার জীবনে ভালো হৃদয়ের মানুষদের লালন করুন। দেরি করবেন না। তাদের প্রাপ্য কৃতজ্ঞতা দেখান।

পাঁচ. আমরা অসুখী হওয়ার একটি বড় কারণ হলো যে- খুব বেশি চিন্তা করি। এমন জিনিস থেকে আপনার মনকে দূরে রাখুন যেগুলো আসলে আপনাকে সাহায্য করে না। ইতিবাচক চিন্তা অনেক দূর এগিয়ে নিয়ে যায়।

ছয়. প্রতিটি অসুবিধা আপনাকে আরও ভালো কিছু করার জন্য প্রস্তুত করছে। তাই দুঃখবোধ করবেন না। সর্বশক্তিমান আপনার জন্য সর্বোচ্চ মঙ্গল চান আর ইবলিশ চায় আপনাকে ধ্বংস করতে। সাবধান হোন।

সাত. আপনি পরীক্ষা, হতাশা, সংশয়, উদ্বেগ এবং ভয়ের মুখোমুখি হতে পারেন; তবে জেনে রাখুন যে আপনি যদি কেবল তাঁরই দিকে মনোনিবেশ করেন তবে তিনি সব কিছুরই দেখাশুনা করবেন।

দ্রষ্টব্য:

আর যে আল্লাহকে ভয় করে, আল্লাহ তার জন্যে নিস্কৃতির পথ করে দেবেন। এবং তাকে তার ধারণাতীত জায়গা থেকে রিযিক দেবেন। যে ব্যক্তি আল্লাহর উপর ভরসা করে, তার জন্যে তিনিই যথেষ্ট। (সূরা তালাক: ২-৩)

আর তোমরা ফেৎনা থেকে বেঁচে থাক যা বিশেষ করে তোমাদের মধ্যে যারা যালিম শুধু তাদের উপরই আপতিত হবে না। আর জেনে রাখ যে, নিশ্চয় আল্লাহ শাস্তি দানে কঠোর। (সুরা-৮ আনফাল: ২৫);

সময়ের শপথ! মানুষ ক্ষতির মধ্যে রয়েছে; তবে তারা ছাড়া যারা ইমান এনেছে ও সৎকাজ করেছে এবং একজন অন্যজনকে হক কথার ও সবর করার উপদেশ দিয়েছে। (সুরা আসর: ১-৩)

* মুফতি মনক (ডক্টর ইসমাইল ইবনে মুসা মেনক) ইসলামি স্কলার ও জিম্বাবুয়ের প্রধান মুফতি

* মাসুম খলিলী, সিনিয়র সাংবাদিক ও কলামিস্ট

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *